প্রথম ‘ফিফটি’তে মোস্তাফিজের নতুন রেকর্ড

0
46

গতকাল আইপিএলে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরুর বিপক্ষে বল হাতে ‘ফিফটি’ করেছেন মোস্তাফিজুর রহমান। তিন বছরের টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ারে গতকালকের তারিখটা বাংলাদেশের বাঁ হাতি পেসার ভুলেই যেতে চাইবেন।
মুম্বাই ইন্ডিয়ানসের প্রথম তিন ম্যাচেই ছিলেন পরিচিত ছন্দে। দারুণ বোলিং করেছেন মোস্তাফিজুর রহমান, আর তাঁর দল প্রতি ম্যাচেই শেষ বলে হেরেছে। কাল হলো উল্টো, মুম্বাইয়ের প্রথম জয়ের দিনে রান দিলেন উদারহস্তে। ৪ ওভারেই খরচ করলেন ৫৫। টি-টোয়েন্টির ৩ বছরের ক্যারিয়ারে এমন অভিজ্ঞতা এই প্রথম তাঁর।

মঙ্গলবার রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্সের শক্তিশালী ব্যাটিংয়ের বিপক্ষে মুম্বাইয়ের বোলিংটা কিন্তু ভালোই হয়েছে। ২০ ওভারে ১৬৭ রান তুলতে পেরেছেন কোহলি-ডি ভিলিয়ার্সরা। দলের বাকি বোলাররা যেখানে বেঙ্গালুরুর ব্যাটসম্যানদের চেপে ধরেছেন, সেখানে মোস্তাফিজ রান বিলিয়েছেন দেদার। অন্যরা ১৬ ওভারে মাত্র ১০৯ রান দিলেও মোস্তাফিজ একাই দিয়েছেন ৫৫ রান। প্রথম ওভারে ১৩, দ্বিতীয় ওভারে ১১, তৃতীয় ওভারে ১৩, শেষ ওভারে ১৮। ৪ ওভারে ১৩.৭৫ ইকোনমিতে ৫৫ রানে থাকলেন উইকেটশূন্য। এত বাজে বোলিং মোস্তাফিজ তাঁর টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ারেই কখনো করেননি।

২০১৫ সালে পাকিস্তানের বিপক্ষে অভিষেকের পর আন্তর্জাতিক ও ঘরোয়া মিলিয়ে ৬৭টি ম্যাচ খেলেছেন মোস্তাফিজ। ২৪টি আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টির পাশাপাশি ৪৩টি ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগের ম্যাচে সব মিলিয়ে ৮৩টি উইকেট তাঁর। মজার ব্যাপার আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের তুলনায় ফ্র্যাঞ্চাইজিতেই যেন একটু ম্লান এই বাঁ হাতি পেসার। বাংলাদেশের হয়ে নেমে ২৪ ম্যাচে ৩৫ উইকেট। ১৮.৬০ গড়ে এক একটি উইকেট, প্রতি ১৫.৮ বল পরপর।

কিন্তু ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগেই ৪৩ ম্যাচে ৪৮ উইকেট। এক একটি উইকেট পেতে প্রায় ২০ বল (১৯.৯৪) দরকার হয়। ওভারপ্রতি রান ৭.০৫ থেকে ৭.০৯-এ উঠে যায়। গড়টাও ১৮.৬০ থেকে বেড়ে হয় ২৩.৫৪! কাল সে ধারা বজায় রেখেই যেন টি-টোয়েন্টি নিজের সবচেয়ে বাজে বোলিংটাও করে ফেললেন। পেছনে ফেললেন গত নভেম্বরে বিপিএলের ম্যাচে রাজশাহী কিংসের হয়ে খুলনা টাইটানসের বিপক্ষে ৪ ওভারে ৪৮ রান দিয়ে উইকেটশূন্য থাকার রেকর্ড।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here