ফিফা বর্ষসেরার সংক্ষিপ্ত তালিকায় রোনালদো-মেসি-নেইমার

0
143

ফিফা বর্ষ সেরার লড়াইয়ে লিওনেল মেসি এবং ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর সঙ্গে সংক্ষিপ্ত তিন জনের তালিকায় স্থান পেয়েছেন ব্রাজিলিয়ান তারকা নেইমার। ব্রাজিলের জার্সিতে আলো ছড়ানো আর বার্সেলোনার হয়ে দূরন্ত ফুটবলারেরই স্বীকৃতি পেলেন তিনি।

এ মৌসুমেই নাম লিখিয়েছেন পিএসজিতে। ফ্রান্সেও খেলে চলেছেন দারুণ। নেইমার ধীরে ধীরে মেসি-রোনালদোর ছায়া থেকে নিজেকে বের করে নিচ্ছেন। কিন্তু তিনি কী পারবেন, মেসি-রোনালদোর দীর্ঘদিনের আধিপত্য শেষ করতে! ২০০৭ সালের কাকার পর এই পুরস্কার মেসি আর রোনালদো ছাড়া কেউই জিতেনি। এবার কে জিতবেন? মেসি, রোনালদো নাকি নেইমার?

চলতি বছরের জন্য সেরা তারকা বাছাই করবে ফিফা নির্বাচিত প্যানেল। এই প্যানেলে আছেন দিয়েগো ম্যারাডোনা, কাফু, লন্ডন ডনোভন, কার্লোস পুয়লদের মতো সাবেক তারকারা। ২৩ অক্টোবর লন্ডন প্যালাডিয়ামে বিজয়ীর নাম ঘোষণা করবে ফিফা। গত বছরের পুরস্কার জিতেছিলেন ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো। লিওনেল মেসি হয়েছিলেন দ্বিতীয়। এছাড়াও তৃতীয় হয়েছিলেন ফরাসি তারকা অ্যান্টোনিও গ্রিজম্যান।

গত মাসে ২৪ জনের সংক্ষিপ্ত তালিকা প্রকাশ করেছিল ফুটবলের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থা ফিফা। গতকাল এই তালিকা তিন জনের মধ্যে নিয়ে আসে তারা। বছরজুড়ে অসাধারণ সাফল্যোর কারণে গতবারের মতো এবারেও রোনালদোর পাল্লাই ভারী। তিনি এবার জিতলে স্পর্শ করবেন লিওনেল মেসির রেকর্ড। মেসি সর্বোচ্চ পাঁচবার ফিফার বর্ষ সেরা হয়েছেন। গত বছরের নভেম্বর থেকে এ বছরের জুলাই পর্যন্ত ফুটবলারদের পারফরম্যান্স বিবেচনায় নিয়ে পুরস্কারটি দেওয়া হবে। এই সময়ের মধ্যে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো রিয়াল মাদ্রিদের হয়ে জয় করেছেন লা লিগা, উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগ এবং ফিফা ক্লাব বিশ্বকাপ। সবগুলোতেই ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর অবদান ছিল সবার চেয়ে বেশি। তাছাড়া চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ইতিহাসে প্রথম তারকা হিসেবে ১০০ গোলের মাইলফলক স্পর্শ করেন তিনি। গত মৌসুমে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে সর্বোচ্চ ১২টি গোল করেন রোনালদো।

লিওনেল মেসি শিরোপা জয়ের দিক থেকে রোনালদোর চেয়ে পিছিয়ে থাকলেও ব্যক্তিগত সফলতায় সবার ওপরে তিনি। গত মৌসুমেই স্পর্শ করেছেন ৫০০ গোলের মাইলফলক। তাছাড়া লা লিগায় সর্বোচ্চ গোল করেছেন তিনি। ৩৪ ম্যাচে ৩৭ গোল করেছেন তিনি। এছাড়াও চ্যাম্পিয়ন্স লিগে করেছেন ৯ ম্যাচে ১১ গোল। সবমিলিয়ে লিওনেল মেসিও এবার অন্যতম দাবিদার। রোনালদো এবং মেসির সঙ্গে এবার তালিকায় শক্ত অবস্থানে আছেন নেইমারও। ইতিহাসের সেরা কামব্যাক ম্যাচে নেইমারই ছিলেন বার্সেলোনার জয়ের নায়ক। পিএসজির কাছে প্রথম লেগে ৪-০ গোলে হেরেও গত মৌসুমে দ্বিতীয় লেগে ৬-১ ব্যবধানে জিতে কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করেছিল বার্সেলোনা। এবার লড়াইটা সত্যিই সেয়ানে-সেয়ানে হতে যাচ্ছে।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here